Breaking News

কোটালীপাড়ায় ৪ নারীর আত্মহত্যা

কোটালীপাড়া  প্রতিনিধি :
গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় পারিবারিক কলহের জেল ধরে গত ২দিনে ৪টি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।
গত বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) উপজেলার কলাবাড়ী গ্রামে গলায় ফাঁস দিয়ে তিথী সরকার (১৮) নামে এক গৃহবধূ ও শুয়াগ্রামে অর্চনা রানী বাড়ৈ (২৭) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করে।
এদিকে, গত শুক্রবার (১০জুলাই) উপজেলার পীড়ারবাড়ী গ্রামের সুমা হালদার (১৯) নামে এক গৃহবধু বিষপানে ও তেতুলবাড়ী গ্রামের রেহেনা খানম (১৩) নামে এক মাদ্রাসা ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।
তিথী সরকার উপজেলার ডহরপাড়া গ্রামের বিপুল বালার স্ত্রী ও অর্চনা রানী বাড়ৈ শুয়াগ্রামের উজ্জল বাড়ৈর স্ত্রী।
অপরদিকে, সুমা হালদার লখন্ডা গ্রামের সজ্ঞিত মজুমদারের স্ত্রী ও রেহেনা খানম তেতুলবাড়ী গ্রামের রশিদ হাওলাদারের মেয়ে ।
করোনার কারণে মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়া ও স্কুল কলেজ বন্ধ থাকায় পারিবারিক কলহের বৃদ্ধির কারণে আত্মহত্যা বেড়েছে বলে অনেকেই মনে করছে।
জানাগেছে, গত ৩ মাস আগে কলাবাড়ী গ্রামের দুঃখীরাম সরকারের মেয়ে তিথী সরকারের সাথে ডহরপাড়া গ্রামের বাবুলাল বালার ছেলে বিপুল বালার পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। ঘটনার দিন সকালে বাবার বাড়ী থেকে স্বামীর বাড়ী যাওয়া নিয়ে তিথীর মা  পুষ্প সরকারের  সাথে তিথীর কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনার পর তিথী অভিমান করে বাবার বাড়ীতে ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।
এদিকে উপজেলার শুয়াগ্রামের উজ্জল বাড়ৈর স্ত্রী অর্চনা বাড়ৈ শাশুড়ীর সাথে ঝগড়া করে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে দড়ি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।
অন্যদিকে, এক বছর আগে পীড়ারবাড়ী গ্রামের সুনিল হালদারের মেয়ে সুমা হালদারের সাথে লখন্ডা গ্রামের সঞ্জিত মজুমদারের পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পরে সুমা হালদারের শাসকষ্ট জনিত সমস্যা দেখা দিলে সুমার স্বামী তাকে বাবার বাড়ীতে রেখে যায়। এরপর সঞ্জিত মজুমদার আর তার স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ করেনি। এ ঘটনায় অভিমান করে আজ শুক্রবার দুপুরে সুমা বিষপানে আত্মহত্যা করে।
অপরদিকে বইপড়ার জন্য রেহেনা খানমকে তার মা বকাঝকা কড়লে অভিমানে ঘরের আড়ার সাথে ওড়না পেচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে সে আত্মহত্যা করে।
সাংবাদিক ও সমাজকর্মী এইচ এম মেহেদী হাসানাত বলেন, করোনার কারণে মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়া ও স্কুল কলেজ বন্ধ থাকায় পারিবারিক কলহ বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এ  কারণে আত্মহত্যা প্রবণতা বেড়েছে। মানুষ কর্মমূখী হলে ও স্কুল কলেজ খুলে দিলে আত্মহত্যার প্রবণতা অনেকটাই কমে যাবে।
কোটালীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ লুৎফর রহমান ঘটনা ৪টির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রাথমিক ভাবে ৪টি ঘটনাই আত্মহত্যা বলে মনে হয়। লাশগুলো ময়না তদন্তের জন্য গোপালগঞ্জ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Check Also

ধর্ষকের সাথে মেলেনি ডিএনএ টেস্ট-তাহলে এই কন্যা সন্তানের পিতা কে?

কোটালীপাড়া প্রতিনিধি: ধর্ষণ মামলায় ৯মাস জেল খেটে ছাড়া পেয়েছেন মোস্তফা শিকদার (৪০) নামে এক যুবক। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *